Why we want our voice to be heard?


Monday, January 31, 2011

An indigenous housewife raped by a group of Bengali settlers in Khagrachari

An indigenous housewife raped by a group of Bengali settlers in Khagrachari

On 26 January 2011 at mid-night an indigenous mother of 4 small children was raped by a group of unscrupulous miscreants at Porabari village of Taindong union under Matiranga sub-district in Khagrachari district.
It was learnt that at around 2 a.m., a group of 8/10 Bengali settlers led by Suruj Mian, Babul Mian and Babul’s younger brother from Muslim Para village went to rob Nityaranjan Tripura’s house at Porabari village. When Nityaranjan came to know about the robbers, he shouted out. But, soon after that, the goons tied him up at a corner in the house and raped his wife (35) one after another before him. Nityaranjan blamed that the miscreants took Tk. 16,000 cash, gold chain and all other valuables (including land documents) away from his house. Since then, the miscreants have been threatening the victim’s family to kill all of them if they would lodge any case against the miscreants.
On 28 January, a case was filed against the miscreants with Matiranga police station (Case No.-05) despite death threat. However, miscreants are yet to be arrested by the police. It was learnt that the victim was taken into Khagrachari Sadar Hospital for health checkup at around 3:00 p.m. on Friday.
Protesting this incident, Chittagong Hill Tracts Hill Students’ Council (PCP) and Bangladesh Indigenous Students’ Action Forum (BISAF) jointly brought out a protest demonstration at Dhaka University Campus ton 29 January 2011.

Kapaeeng Foundation
(An Human Rights Organization for Indigenous Peoples of Bangladesh)
Shalma Garden, House # 23/25, Road # 4, Block # B, PC Culture Housing, Mohammadpur, Dhaka-1207, Telephone: +880-2-8190801
E-mail: kapaeeng.foundation@gmail.com, kapaeeng.watch@gmail.com

PCJSS demands amendment of LC Act during ongoing winter session of Parliament

PCJSS demands amendment of LC Act during ongoing winter session of Parliament

PCJSS organised public meeting, procession and submission of memorandum to the Prime Minister demanding amendment of CHT Land Dispute Commission Act 2001 as per CHT Accord and recommendation of CHT Regional Council during the ongoing winter session of Jatiya Sangsad (national parliament) and appointment of a competent person to the post of Chairmanship of Land Commission removing present Chairman retired justice Khademul Islam Chowdhury.
On 23 January 2011 PCJSS organised public meeting and procession at district and upazila (sub-district) level through out the CHT region and submission of memorandum to the Prime Minister through concerned Deputy Commissioner and Upazila Executive Officer.
Again, on 25 January 2011 PCJSS also organised public meeting and procession at Muktangan in Dhaka. Presided by organising secretary of PCJSS Mr. Shaktipada Tripura, Presidium Member of Gono Forum Mr. Pankaj Bhattachariya, presidium member of Workers’ Party of Bangladesh Md. Fazle Hossain Badshah, central member of BASAD Mr. Bazlur Rashid, general secretary of Bangladesh Adivasi Forum Mr. Sanjeeb Drong, general secretary of Jatiya Adivasi Parishad Mr. Rabindranath Soren, general secretary of Bangladesh Adivasi Chhatra Sangram Parishad Mr. Batayan Chakma, president of PCP of Dhaka city unit Mr. Presenjit Chowdhury Sunny and president of Jatiya Adivasi Chhatra Parishad Harendranath Sing et el. Besides, general secretary of Workers’ Party of Bangladesh Mr. Anisur Rahman Mollick and central member of BASAD Mr. Rajekkujaman Ratan were present in the public meeting.
On the other, on 24 January 2011 human chain was organised by the indigenous people under the banner of the people from all walks of life in Khagrachari. They also submitted memorandum to Prime Minister through DC of Khagrachari. Besides, on 23 January 2011 CHT Citizens’ Committee, CHT Forest and Land Rights Protection Movement and CHT chapter of Bangladesh Adivasi Forum also participated in the human chain in Bandarban and submitted memorandum to the Prime Minister demanding the same.
It is mentionable that on 12 July 2001, just the day before the handing over charge to the Caretaker government, then Awami league government hurriedly passed the “CHT Land (Disputes Settlement) Commission Act 2001” in the parliament without taking into account the advice and recommendations given by the CHTRC. As a result, so many provisions crept into the Act which were contradictory to the CHT Accord and detrimental to the interest of the Jumma people. CHTRC sent recommendations to the government for amendment to the contradictory provisions of the CHT Land Commission Act 2001.
The inter-ministerial meeting held on 10 October 2010 in Rangamati presided over by Land Minister Rezaul Karim Hira decided to amend the LC Act as per recommendations of CHTRC. Further, 3rd meeting of CHT Accord Implementation Committee held on 26 December 2010 in Khagrachari adopted a decision to amend the Act in the next parliamentary session and then to start hearing of land dispute in CHT. Though winter session of Jatiya Sangsad has started from 25 January 2011, but no initiative for amendment of the Land Commission Act has been taken by government so far.
The present grand alliance government led by Awami League appointed retired Justice Khademul Islam as the chairman of the Land Commission in July 2009. After assuming in the office, Mr. Khademul Islam started in a dramatic fashion. He undertook a lightning tour of the three hill districts and convened meeting of the Commission for exchange of views. He used the Deputy Commissioners of the three hill district to issue letter calling upon the members to attend the meeting which was totally irregular. As the DCs are nobody of the Commission. On the other, the chairman of the Commission unilaterally declared to conduct land survey in the CHT without a decision to that effect in any of the meetings. However, CHT Accord provides to conduct survey after resolution of land dispute, rehabilitation of returnee Jumma refugees and internally Jumma displaced persons.
Despite the huge protest from the all sections of the citizens including CHTRC and PCJSS and also three circle chiefs, the Chairman of the Commission justice Khademul Islam Chowdhury continues his unilateral and controversial activities. In mid-July 2010 the secretary of Land Commission issued a notice to the CHT Affairs Ministry and Land Ministry to conduct cadastral survey in CHT soon; otherwise the ministries would be charged non-compliance with court order.
In addition, Mr. Chowdhury also unilaterally declared to start hearing of dispute from 27 December 2010 without discussion of members of the Commission.
With this backdrop, indigenous peoples and civic groups of the country have been demanding removal of justice Khademul Islam Chowdhury from the chairmanship of CHT Land Dispute Resolution Commission.



(Parbatya Chattagram Jana Samhati Samiti)
Kalyanpur, Rangamati-4500, Chittagong Hill Tracts, Bangladesh
Tel+Fax: +880-351-61248
E-mail: pcjss.org@gmail.com, pcjss@hotmail.com
Website: pcjss-cht.org

3rd Meeting of Task Force on Rehabilitation of Returnee Refugees and Internally Displaced Persons (IDPs) held in Chittagong

3rd Meeting of Task Force on Rehabilitation of Returnee Refugees and Internally Displaced Persons (IDPs)  held in Chittagong

3rd Meeting of Task Force held in Chittagong
On 26 January 2011 3rd meeting of Task Force on Rehabilitation of Returnee Refugees and Internally Displaced Persons (IDPs) was held in Chittagong circuit house. The meeting was started at 11.00 am and ended at 02.30 pm.
Presided by Chairman of Task Force Mr. Jatindra Lal Tripura, following members of the Task Force attended the meeting-
1.      Mr. Nikhil Kumar Chakma, Chairman of Rangamati Hill District Council,
2.      Mr. Kyashoihla Marma, Chakma of Bandarban Hill District Council
3.      Mr. Bira Kishore Chakma, representative of Chairman of Khagrachari Hill District Council
4.      Mr. Laxmi Prasad Chakma, representative of PCJSS
5.      Mr. Santoshito Chakma Bakul, representative of returnee Jumma refugees
6.      Md. Shafi, representative of Bengali population
7.      Md. Sirajul Haque Khan, Member-Secretary of Task Force and Divisional Commissioner of Chittagong Division
8.      Major Khushid, representative of GOC of 24th Infantry Division of Chittagong Cantonment
9.      Md. Nurul Alam, Senior Assistant Secretary of CHT Affairs Ministry
Besides, three Deputy Commissioners of three hill districts were also present in the meeting.
Among others, the identification and inclusion of unlisted IDPs, evaluation of implementation of 20 point package facilities, formation of sub-committee for investigation of ground situation of returnee refugees and IDPs, review of the fund received for rehabilitation of returnee refugees  etc were discussed in the meeting.
Chairman of Task Force Mr. Jatindra Lal Tripura started the meeting by welcoming all the members of Task Force and officers. Then he requested to member-secretary of Task Force to place resolution of earlier meeting for approval of the members of the Task Force.
During the discussion, Member-Secretary of the Task Force Md. Sirajul Haque Khan proposed to include Bengali settlers as IDPs for rehabilitation in CHT and to appoint the DC as member of the Task Force. However, representative of PCJSS and returnee refugee Mr. Laxmi Prasad Chakma and Sontoshito Chakma Bakul respectively protested against proposal to include Bengali settlers as IDPs. They argued that CHT Accord authorises Task Force to rehabilitate only Jumma IDPs. They also opined that definition of IDPs and format for identification of IDPs adopted by Task Force meeting held on 27 June 1998 recognises only tribal IDPs. They rather proposed to rehabilitate Bengali settlers outside CHT. They also protested to co-opt DC as a member of the Task Force. In regard to definition of IDPs, member-secretary of Task Force Md. Sirajul Haque Khan proposed to redefine the IDPs with an aim to include Bengali settlers as IDPs.
Chairman of Rangamati HDC Mr. Nikhil Kumar Chakma said that IDPs should be rehabilitated as per CHT Accord. On the other, Chairman of Bandarban HDC and representative of Khagrachari HDC did not pass any comment in this regard. However, Chairman of Task Force Mr. Jatindra Lal Tripura did not oppose the proposal, but said that this issue should be taken to higher authority for final decision. Referring the opinion of Chairman of Task Force, member-secretary of Task Force dictated his secretary to note down the issue to send letter to the Ministry of CHT Affairs asking directive regarding co-opt of DC as member and inclusion of Bengali settlers as IDPs.
Regarding the resolution of land dispute of returnee refugees, Deputy Commissioner of Bandarban made question how can resolve land dispute without land survey. In reply to this, of Rangamati HDC Mr. Nikhil Kumar Chakma said that land dispute will be settled in accordance with customary system of indigenous peoples.
Conclusion: It is clear that government side is still following the previous policy to rehabilitate Bengali settlers in CHT identifying them as IDP which is contradictory to the CHT Accord and the spirit of the movement of the indigenous people.



(Parbatya Chattagram Jana Samhati Samiti)
Kalyanpur, Rangamati-4500, Chittagong Hill Tracts, Bangladesh
Tel+Fax: +880-351-61248
E-mail: pcjss.org@gmail.com, pcjss@hotmail.com
Website: pcjss-cht.org

Indigenous rights groups demand consultation with IPOs in enacting the Forest Act and Wildlife Act

Indigenous rights groups demand consultation with IPOs in enacting the Forest Act and Wildlife Act
On 25 January 2011 indigenous rights organisations namely CHT Citizens’ Committee, CHT Forest and Land Rights Protection Movement, CHT Headmen Networks and Kapaeeng Foundation submitted memorandum to the Chairman of the Parliamentary Standing Committee on Environment and Forest Ministry through Deputy Commissioner of Rangamati hill district demanding consultation by the government with indigenous peoples including their organisations and CHT Regional Council and Hill District Councils before passage of these Acts in the parliament. The memorandum was signed by 21 indigenous leaders from different organisations.
Indigenous rights organisations also organised press conference at Hotel Roof in Rangamati demanding the same. Mr. Goutam Dewan from CHT Citizens’ Committee, Mr. Sudatta Bikash Tanchangya from CHT Forest and Land Rights Protection Movement, Mr. Swdesh Priti Chakma from CHT Headmen Networks and Mr. Udvasan Chakma from Kapaeeng Foundation were present in the press conference. Mr. Sudatta B Tanchangya read out the press statement of the four organisations.
It is mentionable that Government of Bangladesh drafted proposal of further amendment of Forest Act-1927 and enactment of Wildlife (Preservation) Act 2010 canceling the Wildlife (Preservation) Act 1973 and planned to pass these Acts during ongoing parliamentary session. However, though indigenous peoples are stakeholder of these Acts, but no consultation with indigenous peoples is made by the government.
-- ---
Kapaeeng Foundation
(An Human Rights Organization for Indigenous Peoples of Bangladesh)
Shalma Garden, House # 23/25, Road # 4, Block # B, PC Culture Housing, Mohammadpur, Dhaka-1207, Telephone: +880-2-8190801
E-mail: kapaeeng.foundation@gmail.com, kapaeeng.watch@gmail.com

খাগড়াছড়ির দুর্গম অঞ্চলে ধর্ষণের শিকার আদিবাসী নারী

খাগড়াছড়ির দুর্গম অঞ্চলে ধর্ষণের শিকার আদিবাসী নারী

জেলা প্রতিনিধি
খাগড়াছড়ি: জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলার দুর্গম এলাকা তাইন্দং ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পোড়াবাড়ী পাড়ায় এক আদিবাসী নারীকে ধর্ষণ করেছে দুর্বৃত্তরা।

ধর্ষণের শিকার আদিবাসী নারীর নাম মালারুং ত্রিপুরা (৩২)। এসময় দুর্বৃত্তরা নির্যাতিতার স্বামী নিত্য ত্রিপুরাকে (৩৬) শারীরিক নির্যাতন করেছে। গত ২৬ জানুয়ারি রাত আনুমানিক ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

ধর্ষিতার স্বামী নিত্য ত্রিপুরা জানান, স্থানীয় সন্ত্রাসী সুরুষ মিয়া ও বাবুল মিয়ার নেতৃত্বে ৮-৯ জন দুর্বৃত্ত রাত আনুমানিক ২টায় তাদের ঘরে প্রবেশ করে এবং ঘরে ঢুকেই দুর্বৃত্তরা তাকে মাটিতে ফেলে বেধড়ক মারধর করে।

তিনি আরও জানান, সুরুষ মিয়া, বাবুল মিয়াসহ আরো কয়েকজন তার স্ত্রী ও সন্তানদের ওপর চড়াও হয় এবং স্ত্রী মালারুং ত্রিপুরাকে ঘর থেকে বের করে উঠানের একপাশে নিয়ে ধর্ষণ করে।

এছাড়াও দুর্বৃত্তরা পাঁচ মন শুকনো হলুদ, নগদ ১৬ হাজার টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, কাপড় ও একটি ট্রাঙ্ক নিয়ে গেছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার জানায়। ওই ট্রাংকে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র রাখা ছিল।
মালারুং ত্রিপুরা জানান, তাদের ঘরটি পাড়া থেকে এক মাইলের মতো দূরে হওয়ায় এবং দুর্বৃত্তরা তাদের মুখ চেপে রাখায় কোনো প্রকার চিৎকার করতে পারেননি।

এলাকার লোকজনের সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার শুক্রবার সকালে মাটিরাঙ্গা থানায় মামলা করতে যান।

তবে তারা জানান, মামলা করার পর তারা নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারবেন কিনা এবং ভবিষ্যতে নিরাপদে থাকতে পারবেন কিনা সে আশঙ্কায় আছেন।

মাটিরাঙ্গা থানার ওসি মো. মিজানুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজকে জানান, মামলাটির যাবতীয় তথ্য নথিভুক্ত করা হচ্ছে। তাই মামলার নম্বর এখন দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

তাছাড়া মালারুং ত্রিপুরার মেডিকেল টেস্টের জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে বলে জানা যায়।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০১১


source: http://www.banglanews24.com/detailsnews.php?nssl=400438f689c4a4b7003ac38bab4a0eef&nttl=2011012827153&toppos=3

Thursday, January 27, 2011

Five PCJSS supporters killed by UPDF armed terrorists in Rangamati

Five PCJSS supporters killed by UPDF armed terrorists in Rangamati

On 21 January 2011 four innocent supporters of Parbatya Chattagram Jana Samhati Samiti (PCJSS) were killed and one kidnapped by UPDF in two different incidents in Jurachari and Kaptai sub-districts of Rangamati.
It was learnt that at around 3:00 a.m. a group of armed cadres of UPDF led by Tapan Jyoti Chakma alias Barma encircled the house of Arun Chakma, UP member, Moidung Union. After ransacking his house, the UPDF miscreants kidnapped Ratan Chakma (22), s/o Hengoitta Chakma; Kala Chan Chakma (30) s/o Laxmi Moni Chakma; Santosh Kumar Chakma (33) and s/o Kum Ranjan Chakma at gun point. At the same time, Niranjay Chakma (32) s/o Bholanatha Chakma was also kidnapped from his house of Fakirachara Bastipara under Moidung union. After reaching Tarabanya Thum, the miscreants shot Ratan Chakma, Kala Chan Chakma and Niranjay Chakma to death and kept Santosh Kumar Chakma as hostage. However, Santosh Kumar Chakma is suspected to be killed by the terrorists.
In a different incident, Binod Chakma (30) a PCJSS supporter from Gobachari village under Raikhali Union in Kaptai upazila was killed by another group of UPDF miscreants. It was learnt that Binod Chakma, an inhabitant of Khagrachari district was visiting a friend’s house at Gobachari village in Raikhali Union. At around 7 a.m., when Binod Chakma was washing his face, the UPDF cadres suddenly arrived and sprayed bullets on him to death.
At around 11 a.m. PCJSS and Parbatya Chattagram Pahari Chatra Parishad (PCP) brought out a procession at Rangamati town and demanded punishment of the UPDF killers and to ban all sorts of activities of UPDF to government.
It is worth mentioning that print and electronic media reported that the PCJSS supporters were killed in the armed clash. However, this was fully fabricated.
It is mentionable that a few Jumma youths with the support of government forces formed UPDF with an aim to hinder implementation of CHT Accord signed between the government of Bangladesh and PCJSS in 1997 and to destroy the PCJSS leadership as well as to foil movement of indigenous Jumma peoples.

-- ----------


(Parbatya Chattagram Jana Samhati Samiti)
Kalyanpur, Rangamati-4500, Chittagong Hill Tracts, Bangladesh
Tel+Fax: +880-351-61248
E-mail: pcjss.org@gmail.com, pcjss@hotmail.com
Website: pcjss-cht.org

2nd Issue of Jatiyo Daak

2nd Issue of Jatiyo Daak

Note from the Editor of "Jatiyo Daak":

This issue contains an article on page 4 which seeks to analyse the
recent meeting in Khagrachari of the CHT Accord Implementation
Committee and concludes that the meeting and the near-simultaneous
hearing by the Land Commission, choreographed by people behind the
scene, are all part of a blueprint to pacify the anger of the people
over continuous land grabbing. It also says that no substantial
discussions took place in the meeting, as most of the time had to be
spent on the issue of the hearing, which was a nothing but a red
herring designed by the behind-the-scene people.

The issue (on pages 8 and 6) gives a full coverage of the national
convention against repression on national minorities in Chittagong
Hill Tracts held on 29 November 2010 in Dhaka.

Wednesday, January 26, 2011

Adivasis or indigenous peoples in Bangladesh

Adivasis or indigenous peoples in Bangladesh


Enlarge font


by Jens Dahl

WE ARE all indigenous or natives to somewhere, but we are not all indigenous peoples. To be an indigenous people depends, first of all, on the group’s marginal position in relation to the state, to the state authorities and institutions. States which were created as a result of decolonisation—among them East Pakistan and later Bangladesh—were established with borders that roughly followed colonial borders. And these were originally defined from the colonial and military logic and not from the needs or wishes of the local populations. In most colonial territories, and again Bangladesh included, the new and independent states had to accept these borders and then to defend them. There was very little choice and the political set-up, the constitutions, etc reflected the wishes of the majority of the people or at least those in power. In Bangladesh, the constitution of 1972 reflected in the first instance, and as a natural thing, the wishes of the large Bengali majority of the population. As a kind of colonial heritage, this process, nevertheless, left groups of people marginalised in the geographical margins of the new state. Small ethnic groups who made up the majority populations within their traditional lands and territories were nevertheless discriminated against because they had religions, languages, histories, traditions and cultures, which were different from the large majority of the population. The Chakma, the Tripura, the Mru, etc in the Chittagong Hill Tracts and the Khasi, the Garo from the north, etc are examples. These people had no influence on the first constitution and it did not reflect their wishes, and the result was a mono-cultural constitution in which there was no room for the distinctive identities of the Garo, the Santal, the Chakma, etc. These people mentioned are indigenous within Bangladesh but they are also indigenous peoples to their traditional lands and territories. On paper they may have the same individual rights as all other inhabitants of Bangladesh but in practice they are being discriminated against.

In the aftermath of World War II and the decolonisation process, all states—in North America, Asia and Africa—established development activities in the frontier regions with few benefits to the people concerned. In the Canadian Quebec province, a hydroelectric project inundated the lands of the Cree and the Inuit and, similarly, thousands of people were evicted from their lands when the Kaptai Dam was constructed in the Chittagong Hill Tracts. The people who had lived in these places were neither consulted nor were their interests considered. The states were concerned with satisfying the interests of the great majority of the population and on defending the national unity and did completely overlook that there were people who were completely marginalised and most often not even considered in the constitutions.

When decolonisation had come to an end, the United Nations realised that there were peoples in countries all over the world whose rights were not respected because they were not minorities in the sense of the United Nations’ system, and they were also not part of the majority population of their countries. The United Nations called these peoples ‘indigenous peoples.’ The marginalisation and discrimination of these, often tiny, minorities compared to the total population is fairly simple to observe because the languages of these groups are not being taught in school; lands are being taken away from them without compensation: organised re-settlement of mainstream people on the indigenous land aimed at reducing them to minorities, major development projects are established without consulting them and without any or few benefits to the people concerned, etc. In the US, in Canada and in Bangladesh the states wanted to assimilate all populations within their borders, but some people were nevertheless treated differently. It is interesting to observe that these people started to organise themselves at roughly the same time in the US, in Latin America, in Canada and in Asia in protest against what they saw as violations of their rights. They could not appeal to the courts or to the constitution because they were not considered there; there was, and is, a general trend in the ruling circle, as in the case of Bangladesh, to build a monolithic state erasing its existing pluralist character; the political parties were mostly uninterested because there were no votes in supporting them; and often the press did either not care or they were under censorships. Such situations invariably lead to conflicts and in the Chittagong Hill Tracts it lead to a more than 20-year long armed conflict. As a last remedy, the indigenous peoples of the CHT and later other indigenous peoples from Bangladesh turned to the United Nations and met with people from other parts of the world, who had become victims of similar processes.

In the United Nations indigenous peoples have used many efforts to learn from each other, to exchange experiences. After three decades of considerations, governments and indigenous peoples have come to a common understanding of some key points, which finally led to the adoption of the United Nations Declaration on the Rights of Indigenous Peoples in 2007, which now seems to be recognised as an international instrument by basically all governments in the world. The key issue is the recognition of the rights of indigenous peoples, which to most indigenous peoples means constitutional recognition. Constitutions are, however, difficult to change, and it is therefore of key importance that they reflect the realities. Colonialism is now far behind us and the scenario is completely different than it was forty or fifty years ago. When Norway changed its constitution in 1989 they finally included the Saami indigenous peoples. My own country, Denmark, has not changed constitution since 1953 but a constitutional process has been ongoing for quite some years. When it comes, it will no doubt include changes for the indigenous Inuit who lives in Greenland, and as a preliminary step the Danish government has now recognised the Greenland Inuit as a people according to international law. Countries so different as New Zealand, Norway and Burundi have parliamentary seats reserved for indigenous peoples and in still other countries like the Philippines and Nepal are indigenous peoples in different ways recognised in the constitutions. In June 2008, the parliament of Japan passed a resolution formally recognising the Ainus on the Hokkaido Island as indigenous people with distinct language, religion and culture. Malaysia maintains in its constitution special rights for the indigenous communities and the application of special provisions are important in a country with a diversity of races and religions.

Constitutional recognition can be seen as a kind of reconciliation and as an alternative to claim for independence or cessation, which has only been claimed in countries with large groups of indigenous peoples. East Timor is probably the only case known in this respect and is not relevant for countries with several indigenous peoples living in different geographical regions. Constitutional recognition opens for a new dialogue between the state and the indigenous peoples, based on mutual recognition. Constitutional recognitions will signal a new road for the indigenous peoples whose lands and territories were included in the new states of first Pakistan and then Bangladesh without any consultation or acceptance. It also opens a new road for dealing with peoples who de facto have been treated differently by the state authorities. And finally, it gives protection for indigenous peoples’ cultures, languages, lands and livelihoods which otherwise are unprotected.

In many countries where there are groups who claim to be indigenous there is a discussion on who these people are and how they are identified? First of all we should notice that they identify themselves as indigenous, in Bangladesh as adivasis. There is no definition on indigenous peoples and it is futile to find a definition on who has the right to claim rights as an indigenous people, and the United Nations has never seriously considered it as an option. We only have to remind ourselves that few countries in Africa and Asia would be independent today if the global society should agree on a definition on which people had the right to become independent. Any definition is made by those who have the power and can only be used to halt a process. So this is no way out.

But we can find a number of indicators that set some peoples apart and of which some are applicable in specific cases and specific societies. First of all, there are peoples who are being set aside by the states and the majority population because they have a different culture, religion, language, etc. In Bangladesh most of those calling themselves indigenous are non-Muslims (Buddhist, Christians, etc), speak languages different from Bangla, and have traditions which in the historic sense point to people today living in Burma and north-eastern India. And, as part of this, some of these people have their own political or quasi-political institutions that exist parallel with the national institutions. The indigenous peoples may also have a different adaptation to the land, such as shifting-cultivation. Indigenous peoples have common histories, share many emotional and cultural connotations, and have been united by shared conflicts with the state. Secondly, those calling themselves indigenous have linkages to territories of their own, with ties that point back to pre-colonial and pre-independent times. The ethnic identity of indigenous peoples is linked to these ancestral lands. The continuity with the past does not imply authenticity in the sense of unchanged originality but that indigenous peoples live in conformity with their own institutions as these have been formed and developed in contact with those of the colonisers or the states. Thirdly, the indigenous peoples want, as groups, to keep their own traditions and their own linkages to their ancestral territories and to keep their ethnic identity as the basis for existence as a people as conditions for mutual co-existence with the other peoples of the state. This is in contrast to minorities who are not associated with a specific territory and who aim at being integrated in the state but keeping their individual minority rights; indigenous rights are collective rights in contrast to minority rights, which are individual rights. Fourthly, to be indigenous in Bangladesh today refers to descent from people living in specific geographical regions at the time of the establishment of the present state boundaries. Fifthly, those calling themselves indigenous are those who came to the area claimed as their lands and territories before some of those other people living in the area today. This is not the same as saying that ‘we were here first’, which is difficult in most countries not the least in Asia, because should we go 50, 100 or 1,000 back in history? We only have to remind ourselves of the ongoing conflict between the Israelis and the Palestinians to recognise aboriginality as an impossible criterion. Some indigenous peoples have been forced from their lands but this should not rip them of all their rights, however. Others have, as individuals, moved to Dhaka and other urban places outside their homeland but it does not imply that they lose all their rights as being a member of an indigenous peoples. In the colonial days people were recruited in one country to work on plantations or in the mines in other countries and some of these settled in the new place to become cultural or religious minorities. Such peoples are protected as belonging to a minority and have rights as such, but they are not indigenous peoples.

Indigenous peoples who migrate to urban or metropolitan areas often lose their indigenous language, are employed in urban professions and adopt traditions associated with living in urban areas. They no longer live on their ancestral lands but the ancestral lands remain for them an anchor-point and give them a distinct identity — symbolically, practically or culturally.

There are also indicators, which has to do with state policies towards indigenous peoples. Let alone that exactly these people are called by specific names such as ‘adivasi’ in Bangladesh and ‘scheduled tribes’ in India and as such they have in practice been treated as different from the rest of the population. Throughout the colonial and post-colonial history there have been acts and provisions in which the colonial and Bangladeshi governments have used and recognised the special rights of those people called adivasi. Or the government has kept them separate from the rest of the population (the CHT is a semi-closed area, controlled by the army) and established special procedures for the territory of indigenous peoples, such as appointing a special minister for Chittagong Hill Tracts, established a regional council, or in some ways annulled the normal democratic processes in the area, such as postponing elections for the district councils.

For the Chittagong Hill Tracts, inclusion in the constitution can finally be seen as a logical result of the peace accord of 1997 and should give new impetus to the implementation of the accord. For adivasi in the whole country constitutional recognition will recognise a distinctiveness of indigenous peoples, which in many respects are already there.

Jens Dahl is an adjunct professor of regional and cross-cultural studies at the University of Copenhagen. jensdahl@mail.tele.dk


courtesy: newagebd

সরকারের দুই বছর

পাহাড়িদের অন্তহীন দীর্ঘশ্বাস

ইলিরা দেওয়ান | তারিখ: ২৫-০১-২০১১

জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে মহাজোট সরকারের দুই বছর পেরোল। এই ‘হানিমুন পিরিয়ড’-এ সরকারের সফলতা-ব্যর্থতা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব-নিকাশ মিলিয়ে দেখতে বসেছে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণও। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অঙ্গীকারের প্রতি আস্থা রেখে সারা দেশের মতো তিন পার্বত্য জেলার জনগণও মহাজোটের পক্ষে রায় দিয়েছিল। পাহাড়ের মানুষজনকে আকৃষ্ট করেছিল আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির কয়েকটি ধারা। অন্যতম আকর্ষণ ছিল ১৮.১ ধারা, যেখানে বলা হয়, ‘...আদিবাসীদের জমি, জলাধার এবং বন এলাকায় সনাতনি অধিকার সংরক্ষণের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণসহ ভূমি কমিশন গঠন করা হবে। সংখ্যালঘু, আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-জাতিগোষ্ঠীর প্রতি বৈষম্যমূলক সকল প্রকার আইন ও অন্যান্য ব্যবস্থার অবসান করা হবে। ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘু এবং আদিবাসীদের জন্য চাকরি ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।’ এ ছাড়া ১৮.২ ধারায় ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি’ সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা হবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।
সরকারের দুই বছরের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব মেলাতে গিয়ে পাহাড়ে দীর্ঘশ্বাসের পরিমাণটাই বেশি। এ সময়ে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক যেসব উদ্যোগ নিয়েছে, তার মধ্যে পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটি পুনর্গঠন, ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী ও অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু পুনর্বাসনসংক্রান্ত টাস্কফোর্স পুনর্গঠন, ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন পুনর্গঠন উল্লেখযোগ্য। ইতিমধ্যে চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির তিনটি সভা ও টাস্কফোর্সের দুটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু আশ্বাসবাণী ছাড়া উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি নেই। অন্যদিকে ভূমি কমিশন ১৪টি সভা সম্পন্ন করলেও চেয়ারম্যানের স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাবের কারণে ভূমি কমিশনের কার্যক্রম শুরু থেকে বিতর্কিত হয়ে আসছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধানের জন্য এ তিনটি কমিটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলেও এগুলোর পর্যাপ্ত জনবল, কার্যালয়ের সংকটসহ নানা সীমাবদ্ধতা এখনো দূর হয়নি। এ ছাড়া তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডে পরিবর্তন আনা হয়েছে। কিন্তু শুধু এ পুনর্গঠন ও পরিবর্তনে আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো অবকাশ নেই।
গত ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির তৃতীয় সভায় কমিটির আহ্বায়ক বেগম সাজেদা চৌধুরী বলেছেন, পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠায় রোডম্যাপ অনুযায়ী চুক্তির অবাস্তবায়িত বিষয়গুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে (সমকাল, ২৭ ডিসেম্বর ২০১০)। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির পক্ষ থেকে চুক্তি বাস্তবায়নে রোডম্যাপের দাবি জানানো হলেও সরকার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। সাজেদা চৌধুরী এটাও বলেছেন, ‘চুক্তি বাস্তবায়নের একদম শেষ পর্যায়ে আমরা পৌঁছেছি, এখন ফলাফল দেখতে চাই।’ জানুয়ারির সংসদ অধিবেশনে পার্বত্য চুক্তির আইনগত ত্রুটি দূর করা হবে বলেও তিনি সভায় আশ্বাস দিয়েছেন। আর আশ্বাসবাণীর মধ্যে আটকে না থেকে আমরাও চুক্তি বাস্তবায়নের চূড়ান্ত ফলাফল দেখতে চাই।
কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য গৃহীত কিছু বিতর্কিত উদ্যোগের ফলে চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের আন্তরিকতা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠছে, তেমনি পাহাড়ে অস্থিরতাও তৈরি হয়েছে। যেমন, পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের ‘উপজাতি’ হিসেবে উল্লেখ করার নির্দেশ প্রদান, আদিবাসীদের মতামত ছাড়া ‘ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান বিল’ পাস, পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য ‘স্ট্র্যাটেজিক ম্যানেজমেন্ট ফোরাম’ গঠনের পরিকল্পনা, পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল ‘ঠেগামুখ’-এ স্থলবন্দর নির্মাণের ঘোষণা, বন বিভাগ কর্তৃক নতুন নতুন জনবসতি এলাকাকে সংরক্ষিত বনাঞ্চল ঘোষণা, পার্বত্য চট্টগ্রামে আরও তিনটি নতুন ব্যাটালিয়ন ও সেক্টর সদর দপ্তর করার ঘোষণা, পার্বত্য চট্টগ্রামে স্থানীয় সন্ত্রাস নির্মূলের লক্ষ্যে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সাঁড়াশি অভিযানের ঘোষণা পাহাড়ে নতুন করে আতঙ্ক বাড়াচ্ছে। অন্যদিকে পাহাড়ে মৌলবাদী জঙ্গিঘাঁটি আবিষ্কৃত হওয়ার পরও জঙ্গি দমনে সরকারের কোনো উদ্যোগ নেই। অন্যদিকে বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা এবং পাহাড়িদের ভূমি বেদখল করার মতো ঘটনাগুলো পাহাড়িদের উৎকণ্ঠা বাড়িয়েই চলেছে।
এ ছাড়া রাঙামাটিতে মেডিকেল কলেজ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার যে প্রক্রিয়া সরকারিভাবে শুরু হয়েছে, এতে এ প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য অধিগ্রহণকৃত এলাকার জনগণ তৃতীয়বারের মতো উচ্ছেদ হওয়ার আতঙ্কে দিনযাপন করছে। পুনঃ উচ্ছেদের বিরুদ্ধে রাঙামাটিতে জনগণ মানববন্ধন করেছে। পাহাড়ি জনগণ বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের বিপক্ষে নয়, তবে যেকোনো উন্নয়ন পরিকল্পনার আগে সেখানকার বাসিন্দাদের মতামত নেওয়া প্রয়োজন। পার্বত্য চট্টগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের আগে সেখানকার স্কুল-কলেজগুলোর অবকাঠামোগত সংস্কার ও নির্মাণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের জন্য আলাদা শিক্ষাকাঠামো প্রস্তুত ও মাতৃভাষায় শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। চুক্তি মোতাবেক প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগকে জেলা পরিষদে হস্তান্তর করা হলেও পাঠ্যসূচি প্রণয়ন, একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রস্তুত করাসহ কিছু বিষয় জেলা পরিষদ দ্বারা পরিচালিত না হওয়ায় অধিকাংশ পাহাড়ি শিশু প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে অকালে ঝরে পড়ে।
বন বিভাগ কর্তৃক খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় ছয়টি মৌজায় প্রায় সাড়ে ১২ হাজার একর জমিকে সংরক্ষিত বনাঞ্চল হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার ফলে এ মৌজাগুলোর লোকজন প্রতিনিয়ত উচ্ছেদ-আতঙ্কে ভুগছে।
বান্দরবানে রুমা গ্যারিসন সম্প্রসারণের জন্য সাড়ে নয় হাজার একর ভূমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে রুমা উপজেলার জনগণ গত বছরের ৮ নভেম্বর এক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেছিল। জানা যায়, রুমা গ্যারিসনকে সেনানিবাসে উন্নীত করার জন্য ১৯৭৭ সালে নয় হাজার ৫৬০ একর ভূমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু তৎকালীন ভূমি মন্ত্রণালয় পরিবেশগত দিক বিবেচনা করে এ প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়নি। ১৯৯১ সালে পুনরায় অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু করা হলে বেসামরিক প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়, এ অধিগ্রহণের ফলে ব্যক্তিগত মালিকানাধীন ও বন বিভাগের ব্যাপক জমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কিন্তু বিগত জরুরি অবস্থার সময় আবারও এ অধিগ্রহণ প্রক্রিয়াকে সক্রিয় করা হয়েছে। রুমার জনগণ বর্তমানে উচ্ছেদ-আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।
অন্যদিকে উন্নয়ন ও শান্তির নামে পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল ‘ঠেগামুখ’কে স্থলবন্দর করার প্রস্তাব, বাঘাইছড়ির সাজেক পরিদর্শনে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিওপি বাড়ানোর ঘোষণা, পার্বত্য এলাকাকে সহিংসতা থেকে মুক্ত করতে সমন্বিত গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানোর উদ্যোগ, পার্বত্য অঞ্চলের এনজিও কার্যক্রম নজরদারি, আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ, পার্বত্য জেলাগুলোর সীমানা পুনর্নির্ধারণের লক্ষ্যে ‘স্ট্র্যাটেজিক ম্যানেজমেন্ট ফোরাম’ গঠনের পরিকল্পনা করা হয়, যা পার্বত্য চট্টগ্রামের পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে।
উন্নয়নের নামে কেবল প্রস্তাব উত্থাপন করেই উদ্যোগ গ্রহণ করলে সমস্যা শুধু জটিল হবে। এ জন্য স্থানীয় জনগণের মতামত ও সম্পৃক্ততা প্রয়োজন। জোরপূর্বক চাপিয়ে দিয়ে নয়, বাস্তবতার নিরিখে পার্বত্য এলাকার উন্নয়নের জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।
সবশেষে সরকারের যে উপলব্ধি জাগা জরুরি তা হলো, আর কালক্ষেপণ না করে অনতিবিলম্বে চুক্তি বাস্তবায়নসহ ভূমিবিরোধগুলো সত্বর মিটিয়ে ফেলে পাহাড়ে স্থায়ী শান্তির বীজ বপন করতে হবে। নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণ করে পাহাড়ের মানুষজনের আস্থা ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ সরকারকে নিতে হবে।
ইলিরা দেওয়ান: হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।


courtesy: prothom-alo (25.01.2011)

খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন-পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি কমিশন আইন সংশোধনের দাবি

খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি কমিশন আইন সংশোধনের দাবি

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি | তারিখ: ২৫-০১-২০১১

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন, ২০০১ সংশোধন ও বর্তমান ভূমি কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি খাদেমুল ইসলাম চৌধুরীকে অপসারণের দাবিতে খাগড়াছড়িতে মাবনবন্ধন করেছেন আদিবাসীরা।
পার্বত্য চট্টগ্রাম জুম্ম শরণার্থী কল্যাণ সমিতি, খাগড়াছড়ি জেলা হেডম্যান অ্যাসোসিয়েশন ও খাগড়াছড়ি জেলা কার্বারি অ্যাসোসিয়েশন যৌথভাবে গতকাল সোমবার খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করে। মানববন্ধন শেষে তাঁরা প্রধানমন্ত্রী বরাবর জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেন।
স্মারকলিপিতে চার দফা দাবি জানানো হয়। এগুলো হলো: জাতীয় সংসদে আসন্ন অধিবেশনে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের প্রস্তাব অনুসারে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন, ২০০১ সংশোধন; ভূমি কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি খাদেমুল ইসলাম চৌধুরীর অপসারণ; পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বেদখল-প্রক্রিয়া বন্ধ করা ও ভূমি হুকুমদখল-প্রক্রিয়া বন্ধ রাখা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে পুনর্বাসিত বাঙালিদের নামে বিক্রি দলিল হস্তান্তর ও কবুলিয়তনামা পরিবর্তনের প্রক্রিয়া বন্ধ রাখা।
মানববন্ধনে দিঘীনালা উপজেলার রেংকাজ্যা মৌজার হেডম্যান পূর্ণ কুমার চাকমা (৭২) বলেন, এমনিতেই তাঁরা বাস্তুচ্যুত হয়ে অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তুতে পরিণত হয়েছেন। তার ওপর ১৯৯২ সালে বন বিভাগ তাঁদের না জানিয়ে তার আওতাধীন ২৮ নম্বর রেংকাজ্যা মৌজাসহ দিঘীনালা উপজেলার ছয়টি মৌজার প্রায় ১৩ হাজার একর জমি সংরক্ষিত বন হিসেবে ঘোষণা করেছে। তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে কোনো মৌজার ভূমির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হলে আগে হেডম্যানের পরামর্শ নিতে হয়।
অথচ বন বিভাগ তাঁদের না জানিয়ে হাজার হাজার একর জমি সংরক্ষিত বন হিসেবে ঘোষণা করেছে। কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসা রামগড় উপজেলার সোনাই আগা গ্রামের মংসাথোয়াই মারমা (৬৫) জানান, তাঁর ১ দশমিক ২৮ একর ধানের জমি ছিল। ১৯৬৮-৬৯ সালে বন্দোবস্ত পাওয়া সেই জমি এখন মোহাম্মদ ইলিয়াস নামের এক ব্যক্তি দখল করে আছেন।  


courtesy: prothom-alo (25.01.2011)

পার্বত্য ভূমি কমিশন চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবিতে সমাবেশ

পার্বত্য ভূমি কমিশন

চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবিতে সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাঙামাটি ও বান্দরবান প্রতিনিধি | তারিখ: ২৪-০১-২০১১

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন চেয়ারম্যান বিচারপতি খাদেমুল ইসলাম চৌধুরীর অপসারণ দাবিতে গতকাল রোববার রাঙামাটিতে মিছিল ও সমাবেশ করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি। একই দাবিতে গতকাল বান্দরবানে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে বিভিন্ন আদিবাসী সংগঠন।
জনসংহতি সমিতির রাঙামাটি জেলা কার্যালয় থেকে বেলা ১১টায় সমিতির নেতা-কর্মীদের মিছিল বের হয়ে শহরের বনরূপা এলাকা ঘুরে জেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্বরে শেষ হয়। পরে সমিতির রাঙামাটি জেলা শাখার সভাপতি গুণেন্দু বিকাশ চাকমার সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ হয়। সমাবেশে সংগঠনের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মঙ্গল কুমার চাকমা অভিযোগ করেন, সরকারের উদাসীনতার কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূমি সমস্যা জটিল থেকে জটিলতর হয়ে উঠছে। পার্বত্য ভূমি কমিশনের সদস্যদের অবজ্ঞা করে নিজের ইচ্ছামাফিক কার্যক্রম চালাচ্ছেন কমিশনের চেয়ারম্যান খাদেমুল ইসলাম চৌধুরী। তাঁকে অপসারণ করা না হলে তাঁর কোনো সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া হবে না এবং ওই কমিশনের সব ধরনের কার্যক্রম প্রতিরোধ করা হবে বলে সংগঠনের পক্ষ থেকে তিনি ঘোষণা দেন। সমাবেশে জাতীয় সংসদের এবারের শীতকালীন অধিবেশনে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন ২০০১ সংশোধনের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
সমাবেশে বক্তব্য দেন সমিতির রাঙামাটি জেলা সাধারণ সম্পাদক নীলোৎপল চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সাবেক সভাপতি উদয়ন ত্রিপুরা প্রমুখ। পরে এসব দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়।
এদিকে বান্দরবান প্রেসক্লাব চত্বরে সকাল ১০টায় পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি আইন সংশোধন ও কমিশনের চেয়ারম্যান পদ থেকে খাদেমুল ইসলাম চৌধুরীকে অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেন শতাধিক নারী-পুরুষ। পরে তাঁরা সেখানে সমাবেশ করেন। এতে উপস্থিত ছিলেন আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য ও জনসংহতি সমিতির জেলা সভাপতি সাধুরাম ত্রিপুরা, বন ও ভূমি অধিকার সংরক্ষণ আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি জুয়ামলিয়ান আমলাই, আদিবাসী ফোরামের জেলা সভাপতি মংমং চাক, জনসংহতি সমিতি কেন্দ্রীয় ভূমিবিষয়ক সম্পাদক চিংহ্লামং চাক, নাগরিক কমিটির দেন্দোহা জলাই ত্রিপুরা, হিল উইমেন ফেডারেশনের সভাপতি মিঞোচিং মারমা, মহিলা সমিতির সাবেক সভাপতি ওয়াইচিং প্রু মারমা প্রমুখ। সমাবেশ শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়।  


courtesy: prothom-alo (24.01.2010)

'আদিবাসী' নাকি 'ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃগোষ্ঠী'?-ড. খুরশীদা বেগম

'আদিবাসী' নাকি 'ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃগোষ্ঠী'?ড. খুরশীদা বেগম 
বাংলাদেশের শত শত বছরের অধিবাসী, মানব প্রজাতির কয়েকটি রক্তকুলগত (race) গোত্রজ (গোত্রে জাত, সগোত্র, জ্ঞাতি। ইংরেজিতে having common descent or lineage) এবং সেমত স্বতন্ত্র ভাষা (অনেক ক্ষেত্রেই বর্ণমালা নেই বা মৌখিক ভাষা) ও সাহিত্য, সমাজ ও সংস্কৃতির ঐতিহ্যে লালিত বিভিন্ন ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর আত্মপরিচিতি ধারণের স্পর্শকাতর মানবাধিকার বিষয়টির যথার্থ নির্ণয় প্রশ্নে যদি রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে পারিভাষিক শব্দের কোনো ভুল প্রয়োগ ঘটে তবে হিতে বিপরীত ঘটতে পারে বা রাষ্ট্রের নিরাপত্তার সংকট সৃষ্টি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে যেহেতু প্রথাগত ও অপ্রথাগত (conventional and non-conventional security) রাষ্ট্র প্রসঙ্গে প্রযোজ্য, সেহেতু বাংলাদেশের সব ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর আত্মপরিচিতির বিষয় বাস্তবতার নিরিখে অর্থপূর্ণ শব্দে রাজনৈতিকভাবে নিষ্পত্তি ও সাংবিধানিকভাবে নিশ্চিতকরণ আবশ্যক।
বাংলাদেশের অধিবাসী জনধারা
বাংলাদেশে প্রায় ১৬ কোটি (মতান্তরে ১৭ কোটি) অধিবাসীর মধ্যে ৯৮ শতাংশ বাঙালি নৃ-গোষ্ঠী এবং দুই শতাংশ বিভিন্ন ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃ-গোষ্ঠী। এখানে প্রায় ৪৮/৫০টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী রয়েছে, যেমন গারো, সাঁওতাল, মুরং, চাকমা, ত্রিপুরা, রাখাইন, মণিপুরী ও খাসিয়া। এদের অনেকে প্রধানত মঙ্গোলয়েড নরগোষ্ঠীর শ্রেণীভুক্ত। এরা নিজ প্রজাতি-গোত্রের বাইরে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয় না বললেই চলে। যেজন্য রক্তমিশ্রণ বিশেষ ঘটে না। খ্রিস্ট ধর্মের প্রভাবে এদের কারো কারো নিজস্ব গোত্রীয় সমাজের প্রচলিত ধর্মের ক্ষেত্রে পরিবর্তন সূচিত হয়েছে। এ ক্ষুদ্র জনধারাগুলো ঐতিহাসিক নানা কারণে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশের মানচিত্রে স্থিরীকৃত ভূ-অঞ্চলে বসতি স্থাপন করেছে এবং এখানকার ভূমি, নদী, সাগর, পাহাড়, বনাঞ্চল কিংবা ঝড়-জল-বন্যা, খরা-দখিনা অথবা আন্দোলন-অভ্যুত্থান-বিদ্রোহ ও যুদ্ধের ঘটনাপ্রবাহের মধ্যে শত শত বছর ধরে একাকার হয়ে আছে। এসব জনধারার সবাই বাংলাদেশের ভূমিজ সন্তান। বাংলাদেশ সবার জন্মভূমি, সবারই মাতৃভূমি। এখানে উল্লেখ্য যে এই ক্ষুদ্র জনসত্তাগুলো একে অপরের মধ্যে বা বাঙালিদের সঙ্গে মিশে যায়নি।
অন্যদিকে বাংলা ভূ-অঞ্চলের (বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিম বাংলা) বিশাল বাঙালি একটি মিশ্ররক্ত বা সংকট নৃ-গোষ্ঠী বা বাঙালি বিশ্বে অন্যতম বৃহৎ জনগোষ্ঠী। বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিশ্বব্যাপী মানবসমাজের শত শত ভাষা সাহিত্যের মধ্যে বর্তমানে পঞ্চম স্থানে রয়েছে। তবে অকৃত্রিম মাতৃভাষা হিসেবে, অর্থাৎ সাম্রাজ্যবাদী বা ঔপনিবেশিক প্রভাবে গৃহীত ও বিস্তৃত ভাষারূপে নয়, বাংলা ভাষার সংখ্যা বিচারে আরো দুই এক ধাপ ওপরে উঠে যাবে কি না বিশেষজ্ঞরা বলতে পারবেন। বাংলা ভারতবর্ষে দ্বিতীয় বৃহৎ কথ্য ভাষা। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের লেখ্য রূপেরও হাজার বছরের অতীত ইতিহাস রয়েছে। বাংলার ভৌগোলিক অঞ্চলে বাঙালি জনগোষ্ঠীর বসবাসের ইতিহাস অতি সুপ্রাচীন। প্রায় তিন হাজার বছর আগে পবিত্র ঋগ্বেদে 'বঙ্গ' নামে একটি জনধারার উল্লেখ পাওয়া যায়। এই ভূ-অঞ্চলের নামও জনগোষ্ঠীর নাম বাংলা ও বাঙালি রূপে পরস্পর একীভূত। বাঙালির রক্ত সংমিশ্রণগত দেহ ও ভাষার রূপ রূপান্তর বা ক্রমবিকাশ এখানেই ঘটেছে, নাম পরিচয় ইত্যাদিও সামাজিক সাংস্কৃতিক রাজনৈতিক মিথস্ক্রিয়ায় এখানেই বিবর্তিত ও নির্ধারিত হয়েছে। বাঙালি নৃ-গোষ্ঠীও বাংলার আদি-অকৃত্রিম ভূমিজ সন্তান। বাংলাদেশ বাঙালির বহু প্রাচীন মাতৃভূমি।
প্রশ্ন 'আদিবাসী' কে?
ইতিহাসের তথ্য-রেকর্ড সূত্রে বাংলাদেশের 'অখণ্ড মানচিত্রে' বসবাসকারী বাঙালিসহ প্রায় অর্ধ শতাধিক ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃ-গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে কে 'আদিবাসী', কে নয় এ প্রশ্ন অবান্তর। অথচ বাংলাদেশে বাঙালি থেকে পৃথক করে বোঝাতে সব ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীকে এক নামে আদিবাসী বলা হচ্ছে। এই পার্থক্য ইংরেজি ভাষ্যে 'indigenous' ev 'aborigine'' কোনো অর্থেই দাঁড়ায় না, আমেরিকায় অভিবাসনকারী ইংরেজ জনগোষ্ঠী থেকে পৃথক বোঝাতে রেড ইন্ডিয়ান জনগোষ্ঠীকে 'aborigine' বা আদিবাসী বলা অর্থপূর্ণ। ভারত বাংলাদেশের মতো অন্যান্য দেশের বাস্তবতা বিবেচনায় জাতিসংঘ কর্তৃক 'আদিবাসী মর্মে গৃহীত সিদ্ধান্ত পরবর্তীকালে পরিবর্তন করে 'marginal people' জাতীয় কিছু বলা হয়েছে সম্ভবত। জাতিসংঘের এই 'resolution' এক্ষণে হাতে না থাকায় চূড়ান্তরূপে কিছু বলা গেল না। তবে জাতিসংঘ বলুক বা না বলুক, সত্য এই যে বাংলাদেশে ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃ-গোষ্ঠীগুলোর জন্য 'আদিবাসী' পরিচিতি আরোপণের কিছু ক্ষতিকর প্রভাব রাষ্ট্রের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে অনুধাবনযোগ্য। যতদূর জানা যায়, ১৯৯৩ বা গেল শতকের নব্বইয়ের দশক থেকে এই শব্দ ব্যবহৃত হচ্ছে। বিষয়টি রাজনৈতিক বিশ্লেষণ আবশ্যক।
রাষ্ট্রের বিভিন্ন জনধারা এবং জাতীয় সংহতি
১৯৭২-এর সংবিধানে বাঙালি জাতীয়তাবাদ রাষ্ট্রীয় মূলনীতিরূপে গ্রহণ সূত্রে চাকমা নেতা শ্রী মানবেন্দ্র মারমার সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু তাদের 'বাঙালি হয়ে যাও' বলেছিলেন বলে জানা যায়। বক্তব্যটি প্রায়ই নেতিবাচকভাবে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ব্যবস্থায় উপস্থাপিত হয়। বঙ্গবন্ধু যেহেতু বেঁচে নেই, তাঁর সাক্ষাৎকার সূত্রে এ বক্তব্যের মর্ম উদ্ধার করার অবকাশ নেই। সুতরাং এর নেতিবাচক ও ইতিবাচক দুটো দিক চিন্তা করে সত্য খোঁজা যেতে পারে। নেতিবাচক চিন্তায় বঙ্গবন্ধু বাঙালি জনগোষ্ঠীর মধ্যে 'চাকমা' জনসত্তার বিলুপ্তি চেয়েছিলেন। ইতিবাচক চিন্তায় তিনি সদৃশীকরণ (assimilation)-এর আহ্বান জানিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর মতো প্রাজ্ঞ, উদারপন্থী রাজনৈতিক চারিত্র্যে নেতিবাচক চিন্তা সমর্থন পায় না, বিশেষত যখন ৭ মার্চ ১৯৭১ সালের ভাষণে তাঁকে বলতে শোনা যায়, 'বাঙালি-নন বাঙালি' প্রত্যেকে পরস্পরের ভাই এবং প্রত্যেককে রক্ষার দায়িত্ব প্রত্যেকের।
রাজনীতি শাস্ত্রে পঠিতব্য Race and Ethmic politics-এর বিভিন্ন তত্ত্বসূত্রে কোনো দেশের জাতীয় স্বার্থ বিবেচনায় সদৃশীকরণ একটি কাঙ্ক্ষিত পর্যায়। কেননা এর বিপরীতে রয়েছে, দ্বন্দ্ব-সংঘাত (Conflict)। এটি রাজনৈতিক সংহতি তথা জাতীয় সংহতি (national integration) অর্জনের অন্যতম প্রধান উপাদান।
সংহতি অর্থ সম্যক মিলন। মানুষে মানুষে মিলন। সহজ ভাষায় জাতীয় সংহতি হচ্ছে একটি দেশের ক্ষুদ্র বৃহৎ সব নৃ-গোষ্ঠী, আদিবাসী উপজাতি অভিবাসিত (নাগরিক অধিকারপ্রাপ্ত) জনগোষ্ঠী ধর্ম সম্প্রদায় ইত্যাদি নির্বিশেষে সবার দেশজ ও রাষ্ট্রীয় পরিচিতির নিবিড় বন্ধন, ঐক্য ও সম্প্রীতির দৃঢ় অনুভব, সমস্যা মোকাবিলায় অভিন্ন আধ্যাত্মিক তাড়না, দেশের সম্পদ, সম্ভাবনা ও স্বপ্নের অংশীদারি। বস্তুত জাতীয় সংহতি, রাষ্ট্রের উন্নতি ও অগ্রগতি-প্রগতির সূচক শুধু নয়, এটি রাষ্ট্রের ইস্পাতকঠিন নিরাপত্তার বলয় নিশ্চিত করে। এটি অর্জিত না হলে বা অখণ্ড অটুট জনগণসত্তা নির্মিত না হলে যেকোনো ফাঁক-ফাটল ধরে দেশের অপরাজনৈতিক অংশ বা বহির্বিশ্ব থেকে 'ষড়যন্ত্র' প্রবেশের পথ পায়। রাজনৈতিক সভ্যতা বিকাশের বর্তমান পর্যায়ে রাষ্ট্রব্যবস্থায় বসতিভূমি প্রেম (দেশপ্রেম) ও মানবতাবোধভিত্তিক নাগরিক মূল্যবোধ জাতীয় সংহতির গুরুত্বপূর্ণ আউটপুট।
বাংলাদেশ প্রসঙ্গে পর্যবেক্ষণের বিষয় এই যে, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী সদৃশীকরণ ঘটেছে এবং ঘটছে। চাকমা, ত্রিপুরা, গারো_সব ক্ষুদ্র জনসত্তা অতি অসমভাবে সুবিশাল, সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালি নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা শিখেছেন, শিক্ষা-উচ্চশিক্ষা লাভ করছেন, বাঙালি নারী-পুরুষের পোশাক পরছেন, আচার-আচরণ রপ্ত করছেন এবং রাষ্ট্রের সরকারি-বেসরকারি কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত হচ্ছেন। ১৯৭১-পূর্বকালের বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্ত অবস্থান ক্রমে লুপ্ত হচ্ছে। এই সঙ্গে লক্ষণীয়, তরুণ প্রজন্মের বাঙালি নারী-পুরুষেও ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃ-গোষ্ঠীর পোশাক, শিল্প-সংগীতের প্রতি অনুরক্ত হচ্ছে।
বক্ষমাণ নিবন্ধে আলোচনার মূলে ফিরে গিয়ে বলার কথা এই যে, বাংলাদেশ জনজীবনে বিকাশমান এ নাগরিক সমাজের ওপর ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীগুলোর এ আদিবাসী শব্দ প্রয়োগের নেতিবাচক কিছু প্রভাব পর্যবেক্ষণের বিষয়। যেমন
এক. জনমনে ইতিহাস অসমর্থিত ভ্রান্তি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে;
দুই. 'আদিবাসী' ভাবনা থেকে ক্ষুদ্র গোত্রজ নৃ-গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে একরকম অহংবোধ ও বিশাল বাঙালিকে অ-আদিবাসীরূপে প্রশ্নবোধক করে তোলার সম্ভাবনা সৃষ্টি হচ্ছে;
তিন. আদিবাসী ও অ-আদিবাসী হিসেবে নাগরিক জীবনে বিচ্ছিন্নতাবোধ গড়ে উঠতে পারে;
চার. ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীগুলোর নতুন প্রজন্মের মধ্যে শিক্ষা বিস্তারের মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত আত্মসচেতনতা লাইনচ্যুত হতে পারে। যেমন নিবন্ধনকারিণী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বাঙালি শিক্ষার্থী জানিয়েছিল, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে তার একটি ছোট্ট সমীক্ষা সূত্রে উঠে এসেছে যে, উচ্চশিক্ষার্থী চাকমা ছেলেমেয়েরা দুই-একজন বাদে সবাই বলেছে, তারা বাংলা শিখতে চায় না। বিষয়টি বাস্তবতাবোধবিবর্জিত এ কারণে যে, সংখ্যাগরিষ্ঠ ইংরেজিভাষী জনগণ অধ্যুষিত যুক্তরাজ্যে বসতির বাস্তব অবস্থায় ইংরেজি ভাষা না শেখা অসংগত। অন্যদিকে কলেজ শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ ক্ষেত্রে বক্তৃতাদানকালে একজন নিবন্ধনকারিণীকে প্রশ্ন করেছিলেন, চাকমাদের ভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে না কেন? এরূপ ইন্ধনপূর্ণ বক্তব্য ক্ষতিকর, কেননা এ বিষয়টি অর্ধশত প্রায়। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সবার জন্যই প্রযোজ্য। তা ছাড়া রাষ্ট্রভাষার ক্ষেত্রে ভাষার মান ও শক্তি অবধারিত বিষয়।
পাঁচ. বিভিন্ন সময় আলোচনা সূত্রে লক্ষ করা গেছে, কোনো কোনো ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর অঞ্চলগত অধিকারবোধ রাষ্ট্রপক্ষ সমগ্র রাষ্ট্রপক্ষে নাগরিক মূল্যবোধকে ক্ষুণ্ন করে। জ্ঞাতি-গোত্রজ আমরা উপলব্ধি ('We' feelings) স্বাতন্ত্র্য রক্ষার বা পরিচিতি সংরক্ষণের (Preservation of Identity) সহজাত আকাঙ্ক্ষা ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অতিরিক্ত হওয়া বাঞ্ছনীয় না।
বাংলাদেশের মাটি-ভূমি, পানি, গ্যাস, কয়লা, আকাশ-বাতাস সব কিছু বাংলাদেশের বাঙালিসহ সব ক্ষুদ্র গোত্রজ গোষ্ঠী সবার এবং সকলের। সবার জন্য এসব কিছুর সুষম বণ্টনে সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার
নিমিত্তে সুচিন্তিত রাজনৈতিক দর্শন, আদর্শ ও সুস্থ রাজনৈতিক আবহ প্রয়োজন।
বাংলাদেশের গণতন্ত্রে এ রাজনৈতিক সংস্কৃতি নির্মাণের দায় ও দায়িত্বও এ দেশের ক্ষুদ্র-বৃহৎ সব জনধারার অন্তর্গত বিশাল অখণ্ড নাগরিক সমাজের।

লেখক : অধ্যাপক, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ,
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
  -------- courtesy: the daily kaler kantho

Saturday, January 1, 2011

General Imbrahim takes flak over comment on CHT land survey

General Imbrahim takes flak over comment on CHT land survey

The chief organiser of the Rangamati district unit of the United
Peoples Democratic Front, Shanti Dev Chakma took Major General Sayed
Ibrahim (Rd) to task for advocating a cadastral land survey prior to
the settlement of land disputes in the Chittagong Hill Tracts.

Speaking as chief guest at a discussion meeting organised by Parbatyo
Bangali Chattra Parishad, a military-backed outfit of the Bengali
settlers, in Rangmati yesterday, the former army commander and
chairman of Kalyan Party said land problems in the CHT could not be
resolved without a land survey.

In a statement issued to the media today, Shanti Dev Chakma refuted
Ibrabim, saying “the demand for land survey was raised with a view to
providing legal sanctions to the illegal land grabs by Bengali
settlers, who were brought in the CHT during the era of General Ziaur
Rhaman and General Hussain Md. Ershad”.

He said land surveys must not be carried out prior to the settlement
of land disputes.

He further said settlement of land disputes was not possible if
illegal land settlements given to the settlers were not revoked and
the grabbed lands were not returned to the actual owners.

“The government or the Land Commission can revoke such settlements by
invoking section 6 (c) of the CHT Land Commission Act” he added.

The UPDF leader demanded trial of General Ibrahim for crimes against
humanity, and said: “It was during his reign in the CHT that
repression of the Jumma people reached its highest pitch, with
thousands of them being ejected from their hearts and homes and forced
to seek refuge in India.”

Branding Ibrahim as an accomplice of military dictator General Ershad,
Shanti said it was because of these people that Bangladesh slid back
into chaos and the CHT saw its peace, stability and development

“Exemplary punishment should be meted out to them so that no one can
dare to usurp power in the country and to impose repressive policies
in the CHT in future.” he added.

courtesy: chtnews.com

আদিবাসীদের ‘রক্ষাগোলা’ শক্তিশালী করার প্রত্যয় নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ | তারিখ: ০১-০১-২০১১

আদিবাসীদের ‘রক্ষাগোলা’ শক্তিশালী করার প্রত্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ | তারিখ: ০১-০১-২০১১

‘দিনরে মিমুট, হপ্তারে আধা কেজি, বছরে দ’ ছাব্বিশ কেজি, দিবং ডিংগুইয়া রক্ষাগোলা (অর্থাৎ দিনে কয়েক মুষ্ঠি, সপ্তাহে আধা কেজি ও বছরে ২৬ কেজি চাল দিয়ে আমরা গড়ে তুলেছি রক্ষাগোলা।)’ গত বৃহস্পতিবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রাজাবাড়ী উচ্চবিদ্যালয় মাঠে রক্ষাগোলা গ্রাম সমাজ সংগঠনগুলোর বার্ষিক সাধারণ সভায় দাদৌড় সাঁওতাল গ্রামের রক্ষাগোলা সংগঠনের নেতা সাহেব মুর্মু এভাবেই নিজ ভাষায় তাঁদের সংগঠন গড়ে তোলার প্রক্রিয়া বর্ণনা করছিলেন।
ঢাক-ঢোল বাজিয়ে মিছিল নিয়ে ২২টি আদিবাসী গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার নারী-পুরুষ সভায় যোগ দেন। আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে রক্ষাগোলা আরও শক্তিশালী করতে এবং আদিবাসীদের ওপর অত্যাচার-নিপীড়নের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে সংগ্রামের প্রত্যয় ঘোষণা করে তাঁরা বাড়ি ফেরেন।
সাহেব মুর্মু জানান, ২২টি গ্রামের রক্ষাগোলায় এখন জমা আছে ১৩০ মণ চাল, ৩৩ মণ গম ও ১১ লাখ ৩৪ হাজার ১২৬ টাকা। এখন এসব গ্রামের কাউকে না খেয়ে থাকতে হয় না। টাকার অভাবে শিশুদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয় না। এ ছাড়া অন্যান্য বিপদ-আপদে আর আগের মতো ভয় পেতে হয় না। কারণ এসব থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্যই গড়ে উঠেছে রক্ষাগোলা।
অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরী আদিবাসীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনাদের কার্যক্রম গোটা গোদাগাড়ীতে ছড়িয়ে পড়ুক, এটাই আমি চাই।’ তিনি বলেন, ‘আদিবাসীদের জন্য আমি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে ১৪৯ কোটি টাকার প্রকল্প পেশ করেছি। এতে আদিবাসীদের উন্নয়নের জন্য রক্ষাগোলার ধারণাও দেওয়া হয়েছে।’
আদিবাসী নেতা পরেশ কুজুরের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমীন প্রামাণিক। বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আদিবাসী সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক এভারিষ্ট হেমব্রম ছাড়াও মুকুল সিকদার, মোলাজ্জেম হোসেন, হাসান মিল্লাত, আনোয়ার হোসেন, সাইদুর রহমান, সুমিত্রা রাজোয়ার, মোংলা মার্ডি প্রমুখ।

courtesy: prothom-alo  http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-01-01/news/119836

সংবিধানের অনেক বক্তব্য পারস্পরিক সংঘাতমূলক -শ্যামল সরকার ও হারুন আল রশীদ

সংবিধানের অনেক বক্তব্য পারস্পরিক সংঘাতমূলক

শ্যামল সরকার ও হারুন আল রশীদ | তারিখ: ০১-০১-২০১১

রাষ্ট্র কোনো ধর্মের পৃষ্ঠপোষকতা করবে না বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করা হলেও সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকছে। পাশাপাশি দেশে মুক্তবাজার অর্থনীতি চালু থাকলেও পুনর্বহাল হচ্ছে সমাজতন্ত্র। বাংলাদেশের নাগরিকেরা বাংলাদেশি হিসেবে পরিচিত হবেন বলে সংবিধানে উল্লেখ থাকলেও পুনর্বহাল হচ্ছে বাঙালি জাতীয়তাবাদ।
বাংলাদেশ কলাবরেটরস (বিশেষ ট্রাইব্যুনাল) আদেশসংক্রান্ত সংবিধানের ১২২ অনুচ্ছেদের ৪(ঙ) পুনর্বহাল হচ্ছে। ফলে ১৯৭২ সালে এই আইনের অধীনে যারা দোষী সাব্যস্ত হয়েছিল বা যাদের নামে মামলা হয়েছিল, সেগুলো পুনরুজ্জীবিত করা যাবে। পঁচাত্তরের ৩ নম্বর সামরিক ফরমানবলে ১৯৭২ সালের এই আদেশ বাতিল করা হয়েছিল।
পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করে দেওয়া সুপ্রিম কোর্টের রায় ও নির্দেশনা অনুযায়ী সংবিধান পুনর্মুদ্রিত হচ্ছে এভাবেই। আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে রায় ও নির্দেশনার আলোকে সংবিধানে কী কী বিষয় কীভাবে প্রতিস্থাপিত হবে আর কী কী বিষয় বিলুপ্ত হবে, তা চূড়ান্ত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে পাণ্ডুলিপি সরকারি ছাপাখানায় পাঠানো হয়েছে।
সংবিধানের কমবেশি ২৫টি অনুচ্ছেদের সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষ পুনর্বহাল বা বাদ দেওয়া হয়েছে। উল্লেখযোগ্য অনুচ্ছেদগুলো হচ্ছে: ৮, ৯, ১০, ১২, ২৫, ৩৮, ৪২, ৪৭, ৬৪, ৬৬, ৮০, ৮৮, ৯৩, ৯৫, ৯৮, ৯৯, ১০১, ১০২, ১০৩, ১০৭, ১১৭, ১২২, ১৪২, ১৪৫(ক) ও ১৫২। সংবিধানের ১৪২ অনুচ্ছেদে গণভোটের যে বিধান ছিল, সেটিও বাদ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া চতুর্থ তফসিলের ৩(৩ক) ও ১৮ দফায় ১৯৭৫ সালের সামরিক শাসন ও সামরিক ফরমানকে বৈধতা দিয়ে যেসব বিধান রাখা হয়েছিল, তা বাদ দেওয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পঞ্চম সংশোধনীর রায় ও নির্দেশনার আলোকে সংবিধান পুনর্মুদ্রণ করা হলে অনেকগুলো বিষয় পরস্পরবিরোধী হবে, যা সংবিধানের মৌলিক নীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে না। এটি অনেক ক্ষেত্রে স্ববিরোধী হিসেবে প্রতিভাত হবে।
জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, যেভাবে উচ্চ আদালতের রায় ও নির্দেশনার আলোকে সংবিধানের নতুন সংযোজন ও বিয়োজন হচ্ছে, সেভাবেই সরকারি ছাপাখানায় পাণ্ডুলিপি পাঠানো হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, সাংঘর্ষিক বিষয় কিছু থাকলে সংবিধান সংশোধন-সম্পর্কিত বিশেষ কমিটি তা বিবেচনা করে সংসদে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনতে পারে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সংবিধানের অষ্টম সংশোধনী নিয়ে হাইকোর্টে মামলা রয়েছে। তাই এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা যাবে না। তবে যেটুকু করা হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ রায় ও নির্দেশনার আলোকে।
সামরিক শাসক এরশাদের আমলে ১৯৮৮ সালে জাতীয় সংসদে অষ্টম সংশোধনীর মাধ্যমে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা করা হয়। এ ক্ষেত্রে সংবিধানের ২ অনুচ্ছেদে অতিরিক্ত ২(ক) অনুচ্ছেদ প্রতিস্থাপন করে বলা হয়, প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হবে। তবে অন্যান্য ধর্মও প্রজাতন্ত্রে শান্তিতে পালন করা যাবে।
বিশিষ্ট আইনজীবী এম জহির প্রথম আলোকে বলেন, সংশোধনে গঠিত বিশেষ কমিটিকে অবশ্যই ১২ অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হয়, এমন সব বিষয় বিবেচনায় নেওয়া উচিত হবে।
বিশিষ্ট আইনীজীবী শাহ্দীন মালিক বলেন, সংবিধানের ১২ অনুচ্ছেদ প্রতিস্থাপিত হলে অষ্টম সংশোধনী এর সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে। সংবিধানের ২৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রণীত কোনো আইন-বিধান পরস্পর আইনের সঙ্গে যতটা সাংঘর্ষিক, ততটা বাতিল বলে গণ্য হবে। সংবিধানকে বলা হয় সর্বোচ্চ আইন, তাই এর কোনো অংশ আরেকটি অংশের সঙ্গে সাংঘর্ষিক থাকলে তা বিবেচনায় নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।
বাহাত্তরের সংবিধানের ১২ অনুচ্ছেদে বলা ছিল, ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি বাস্তবায়নের জন্য (ক) সর্বপ্রকার সাম্প্রদায়িকতা (খ) রাষ্ট্র কর্তৃক কোনো ধর্মকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান (গ) রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ধর্মীয় অপব্যবহার এবং (ঘ) কোনো বিশেষ ধর্ম পালনকারী ব্যক্তির প্রতি বৈষম্য, তার ওপর নিপীড়ন বিলোপ করা হবে।
আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় ও পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী ১৯৭২ সালের মূল সংবিধানে সন্নিবেশিত ১২ অনুচ্ছেদ প্রতিস্থাপন হচ্ছে।
সংবিধান সংশোধনে গঠিত বিশেষ কমিটির কো-চেয়ারম্যান সাংসদ সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত প্রথম আলোকে বলেন, হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টের রায়-পর্যবেক্ষণ এবং অতীত ও বর্তমান সংবিধান এবং দেশের সার্বিক রাজনৈতিক-সামাজিক পরিস্থিতি পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
প্রসঙ্গত, সংবিধানের তৃতীয় ভাগের ২৬(১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, এই ভাগের বিধানাবলির সঙ্গে অসামঞ্জস্য সব আইন যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, এই সংবিধান প্রবর্তন হতে সেসব আইনের ততখানি বাতিল হবে। ২৬(২) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্র এই ভাগের কোনো বিধানের সঙ্গে অসামঞ্জস্য কোনো আইন প্রণয়ন করবে না এবং অনুরূপ আইন প্রণীত হলে তা এই বিভাগের বিধানের সঙ্গে যতখানি অসামঞ্জস্য, তা বাতিল হবে।
২৮(১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, শুধু ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদে বা জন্মস্থানের কারণে কোনো নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করবে না।
সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আকবর আলি খানের মতে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসংবলিত সংবিধান জাতির আকাঙ্ক্ষা। তিনি বলেন, ৩৯ বছরে সংবিধানকে এমনভাবে কাটাছেঁড়া করা হয়েছে, যার অনেক কিছুই জাতিকে কলঙ্কিত করেছে। অনেক স্পর্শকাতর বিষয় সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত আছে। সে জন্য বারবার সংবিধান সংশোধনের মতো কাজে হাত না দিয়ে সংবিধান পর্যালোচনা করে যা দরকার, তা একটি সংশোধনীর মাধ্যমে করার পক্ষে মত দেন তিনি। তবে সংবিধান সংশোধনে সরকারের অগ্রাধিকার হওয়া উচিত।
জানা গেছে, পুনর্মুদ্রিত সংবিধানের প্রস্তাবনায় একাত্তরের ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা ও ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকারের ঘোষণাপত্র থাকছে। এর ওপরেই থাকবে ‘বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম’। এ ছাড়া নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ ও সংসদকর্মেও বেশ কিছু সংশোধনীমূলক বক্তব্য নতুন করে যোগ হচ্ছে সংবিধানে।
ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিটি বাস্তবায়ন করা হবে এসব বিষয়কে বর্জন করে: (ক) সব ধরনের সাম্প্রদায়িকতা, (খ) ধর্মভিত্তিক রাজনীতির রাষ্ট্রীয় অনুমোদন, (গ) ধর্মকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা, (ঘ) বিশেষ কোনো ধর্মাবলম্বী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বৈষম্য অথবা হয়রানি। ১৯৭৭ সালের ঘোষণা আদেশ নম্বর-১ দ্বারা মূল অনুচ্ছেদ ১২ বিলুপ্ত করা হয়।
রাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের নীতিগত ভিত্তির ক্ষেত্রেও বাহাত্তরের সংবিধানের নীতি প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে।
আর্টিকেল ১০২-এর অধীনে জাতীয় সংসদ আইন মোতাবেক হাইকোর্ট বিভাগের ক্ষমতা ক্ষুণ্ন না করে অন্যান্য আদালতকে তার স্থানীয় ক্ষমতার সীমা অনুযায়ী ক্ষমতায়ন করতে পারে, যাতে আদালতগুলো ওই সব ক্ষমতা বা এগুলোর যেকোনো একটি ব্যবহার করতে পারে বলে নতুন বক্তব্য সংবিধানে পুনর্মুদ্রিত করা হচ্ছে।